Saturday, October 12, 2019

SSK MSK শিক্ষকদের বর্তমানে একটি সরকার বিরোধী অস্ত্রে পরিণত করা হয়েছে ! এর পেছনে রয়েছে সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্র

SSK MSK শিক্ষকদের বর্তমানে একটি সরকার বিরোধী অস্ত্রে পরিণত করা হয়েছে ! এর পেছনে রয়েছে সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্র




কিছু কথা আজ না বলে পারছি না ! লেখাটি পড়ে আপনার মনে হতে পারে আমি স্বার্থপর ! এতে আমার কোন আফসোস নেই ! আমি নিজেই জোরগলায় বলছি "হ্যা আমি স্বার্থপর" । জীবনের 50 বছর পার করে আজ রক্ত ঠান্ডা হয়ে এসেছে । মেরুদন্ডও হয়তো কিছুটা বেঁকে এসেছে । তাই আমি স্বার্থপর ।
এবার শুরু করি সাম্প্রতিককালে  SSK MSK শিক্ষকদের নিয়ে যা ঘটছে তা আমাকে পীড়িত করে । আমি খুব ভালো করে জানি গত আট বছরে SSK ও MSK শিক্ষকদের কিছুই হয়নি । আসলে এই "গত আট বছর" শব্দবন্ধটিও খুবই পরিকল্পিতভাবে আমাদের মাথায় ঢোকানো হয়েছে । কারণ আমরা বর্তমানে একটা সরকার বিরোধীতার একটি অস্ত্র হয়ে উঠেছি । এই লেখায় সব পরিষ্কার করবো । তাই ধৈর্য্য ধরে নিজের বিশ্বাসকে পাশে সরিয়ে ঠান্ডা মাথায় খোলা মনে লেখাটি পড়বেন । তারপর নিজের বিচারবুদ্ধি লাগিয়ে কমেন্ট দেবেন ।

আমি খুব ভালো করে জানি গত আটবছর আমাদের কিছুই হয়নি।  আসলে কথাটা আংশিক সত্য ।শুধু  গত আট বছর নয় , তার আগের সিপিএম সরকারের আমলেও আমাদের কিছুই হয় নি । অর্থাৎ গত 19-20 বছরে আমাদের কিছুই হয়নি । কিন্তু খুব সুপরিকল্পিতভাবে আমাদের মাথায় এই শব্দবন্ধটি গেঁথে দেওয়া হয়েছে , যে "গত আট বছরে আমাদের কিছুই হয়নি" । এটি একটি নির্দিষ্ট রাজনৈতিক দলকে আড়াল করে , একটি নির্দিষ্ট রাজনৈতিক দলকে আক্রমণ করার ঠান্ডা মাথার কৌশল।  আরো একটু খুলে বলি ... সিপিএম সরকারের সময়কালকে আড়াল করে , নির্দিষ্টভাবে তৃণমূল সরকারকে আক্রমণ করার কৌশল । তাই এবার থেকে আর আটবছর বলা বন্ধ করে গত 19-20 বছর আমাদের কিছুই হয়নি এটা বলা শুরু করুন । কারণ যা সত্য তা সর্বদাই সত্য ।

এবার নিশ্চয়ই আপনি ভাবতে শুরু করেছেন আমি সরকার পক্ষের লোক । নাহ ! আমি সরকার পক্ষেরও নয় , সরকার বিরোধীও নয় । আমি SSK MSK পক্ষের । কিন্তু খুব দুঃখের সাথেই বলছি বর্তমানে আমাদের বেশিরভাগ শিক্ষক  সরকার বিরোধী তকমা লাগিয়ে ফেলেছি । আসলে আমি একটা কথা প্রথমেই বলেছি  আমাদেরকে ব্যবহার করা হচ্ছে সরকার বিরোধিতার কাজে।  তাই একটু সচেতন হোন , একটু চোখটা খোলা রাখুন । কিভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে আমাদের ? সব ক্লিয়ার করছি । লেখাটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন ।

এবার আসি গত কয়েকমাসের আন্দোলনের কথায়  । আমরা জীবনের প্রথমবার বোনাস পেয়েছি । আমাদের বেতনবৃদ্ধিও ঘটছে । তার GO খুব তাড়াতাড়ি প্রকাশ হবে । হয়তো 18 ই অক্টোবরের মধ্যেই প্রকাশ হবে । অনেকে মনে করছেন এটা আমাদের আংশিক জয় । আমি মনে করি এতে আমাদের সামান্যতম জয়ও হয়নি । হ্যা ! এবার নিশ্চয়ই আমার উপর রাগ হচ্ছে , মনে হচ্ছে দুচারটে মা-বাপ তুলে শব্দ প্রয়োগ করতে ।  তা করুন । অসুবিধা নেই । কিন্তু শেষপর্যন্ত পড়ুন ।
আমরা সাতদিন করে দুবার ধর্ণা কর্মসূচী পালন করেছি । বিকাশভবন অভিযান করেছি । বিধানসভা অভিযান করেছি । তারফলে নাকি আমাদের পার্শ্বশিক্ষকদের তকমা জুটেছে । এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে আমরা এই কয়েকটি জমায়েতে নিশ্চিতভাবে একত্রিত হতে পেরেছিলাম , আমাদের শক্তি সংবদ্ধ করতে সমর্থ হয়েছিলাম । কিন্তু বাস্তবেই এর ফলে আমাদের  পার্শ্ব শিক্ষকের তকমা জোটে নি । আমাদের যে বেতন বাড়বে সেটা গত 6 ই মার্চ একটি খসড়া প্রকাশ করে ঠিক করা হয়েছিল । যে খসড়াতে আমাদের বেতন 10000 এবং 13000 করার কথা বলা হয় । 6 ই মার্চের পরেও আমরা অনেক জমায়েত , আন্দোলন করেছি । কিন্তু সেই খসড়ার সামান্যতম পরিবর্তন করতে পারিনি । যেখানে আন্দোলনের মূল দাবিই ছিল 18000 ও 25000 বেতন । সেখান থেকে 10 হাজার ও 13 হাজার করা হল  এত আন্দোলনের পরেও । তখন নেতারা সেটাকেই মেনে নিল । এবং নেতৃত্ব যাতে হারিয়ে না যায় , তাই সেটিকেই নিজেদের আংশিক জয় বলে চালিয়ে দেওয়া হতে লাগলো । অথচ এই বেতন কাঠামো তো গত 6 ই মার্চই ঠিক হয়ে গেছিল । তাহলে পুলিশের লাঠিপেটা , রোদ -ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে ধর্ণা ! কি লাভ হল এসবে ? একটু ঠান্ডা মাথায় ভাববেন ।

এবার আমি আবারো শুরুর কথায় চলে যাবো  যে বর্তমানে আমরা সরকার বিরোধিতার একটি অস্ত্রতে পরিণত হয়েছি । তার থেকে আরো বলা ভালো যে , আমাদেরকে সরকার বিরোধিতার একটি অস্ত্রে পরিণত করা হয়েছে খুবই সুপরিকল্পিতভাবে । আমরা আরো কিছু পাওয়ার আশায় সেই নেতার "হ্যা তে হ্যা" এবং "না তে না" করে চলেছি । যদি আমাদের কিছু গতি হয় এই ভাবনা থেকে যেখানেই কোন অন্যায় হচ্ছে আমরা দলবদ্ধভাবে আন্দোলন করা শুরু করছি । বা বলা ভালো আমাদেরকে দিয়ে আন্দোলন করানো হচ্ছে । এবং বুঝতে পারছি না , নিজের পায়ে নিজেই কুড়ুল মেরে চলেছি । আমি বলছি না যে অন্যায়ের প্রতিবাদ করা উচিত নয় , কিন্তু এই জীবন সায়াহ্নে এসে কি আমাদের প্রত্যেকটি অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার খুব একটা প্রয়োজন আছে ? হ্যা ! এখানেই আমি স্বার্থপর । সত্যি বলতে কি যেখানে আমরা নিজেদের বেতন টুকু সম্মানজনক জায়গায় নিয়ে যেতে পারিনি , যেখানে দীর্ঘ 20 বছর পরও ( খেয়াল করবেন আট বছর নয় ) "শিক্ষক" নামক তকমাটাও নিজের সাথে জুড়তে পারিনি , সেখানে খুব কি দরকার আছে কোথায় কে খুন হয়েছে তার বিরোধিতা করার ? আমি একবারও বলছি না শিক্ষক খুনের কাজটা ঠিক হয়েছে , আমি বলছি এটা ভীষণ রকম অন্যায় অমানুষিক , পাশবিক একটা ঘটনা । সত্যিই একে নিন্দা করার ভাষা নেই । কিন্তু তার জন্য আমাদের মত পঞ্চাশোর্ধ শিক্ষকদের ব্যানার নিয়ে দলে দলে রাস্তায় নেমে বিরোধিতা করার কি খুব দরকার আছে ? নাকি সেটা করলে সরকার আমাদের ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে তাড়াতাড়ি উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে ? বাস্তবেই আমাদের গুটিকয়েক শিক্ষকের বিরোধিতায় সরকারের কিচ্ছু যায় আসে না । উল্টে আমাদেরই সরকার বিরোধী তকমা লাগছে । আমরা নিজেদের বেতন বৃদ্ধির জন্যই আন্দোলন করি , কেন শিক্ষাবন্ধুদের   আন্দোলনেও আমরা সামিল হবো ? দেখুন আমি বলছি না এটা ভুল ! আমি বলছি কি দরকার আছে বারবার প্রত্যেকটি বিষয়ে সরকার বিরোধিতা করার ? এখানেই আমি স্বার্থপর । তাদের আন্দোলনে আমাদের মানসিক সমর্থন থাকতেই পারে  , কিন্তু রাস্তায় নেমে সরকারের চক্ষুশূল হওয়ার কি দরকার আছে ।
আপনি হয়ত এবার নিশ্চয়ই ভাবছেন "এই লোকটি নিশ্চয়ই সরকারের কাছে টাকা খেয়েছে" কিন্তু এ ধারণা আপনার চূড়ান্ত ভুল । আমি জোর গলায় বলছি তৃণমূল সরকার এতদিনে আমাদের জন্য কিচ্ছুটি করেনি ! হাজার বার বলছি একথা । একইভাবে এটাও বলছি এর আগের সিপিএম সরকারও আমাদের জন্য কিচ্ছু করেনি । আমরা চিরকালই বঞ্চিত ও অবহেলিত । তাই বলছি একটু বুদ্ধি লাগান , একটু সচেতন হোন ।
আন্দোলন অবশ্যই দরকার । তবে সেই আন্দোলন যেন শুধুমাত্র আমাদের যোগ্য সম্মান মর্যাদা আদায়ের জনই হয় । কার বাড়িতে ঢিল পড়েছে ! কেন পড়বে ঢিল ? এই বয়সে এসে সেসব বিষয় নিয়ে মাথা না ঘামালেও চলবে ।
আমি শেষ কথা এই বলেই শেষ করবো নিজেদের সরকার বিরোধী অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার হতে দেবেন না , শুধুমাত্র নিজেদের দাবি আদায়ের জন্য একত্রিত হন । ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করুন । প্রাপ্য সম্মান ও মর্যাদা আদায়ের উদ্দেশ্যে সংঘবদ্ধ হন । ঐক্যবদ্ধভাবে আওয়াজ তুলুন ।
"আমরাও শিক্ষক"

-ধন্যবাদান্তে
একজন MSK শিক্ষক



2 comments:

  1. Asole apni kono andoloni korte bolchhen na ebong chup kore thakun ja hoy tai nin buro manuser chitkar korte hoy na tabe Ami kintu maidul islamk samorthan Kori na uni net work b byabosayee
    I'm bimaldebnath

    ReplyDelete
  2. আপনার সঙ্গে আমি একমত ।

    ReplyDelete

এখন যদি করেন কেস , অচিরে ই হবেন শেষ

এখন যদি করেন কেস , অচিরে ই  হবেন শেষ    প্রচলিত অনেক কথা আছে ------ "শিকারী বিড়ালের গোঁফ দেখলেই চেনা যায়  বা   মায়ের চেয়ে মাসির দরদ বেশ...