Wednesday, October 2, 2019

SSK MSK সাংগঠনিক একীকরণ এবং কিছু প্রাসঙ্গিক ভাবনা ৷

SSK MSK সাংগঠনিক একীকরণ এবং কিছু প্রাসঙ্গিক ভাবনা ৷




   গতকাল অর্থাৎ ০১/১০/২০১৯ তারিখে শিক্ষামন্ত্রী এস.এস.কে./এম.এস.কে.র বেতনবৃদ্ধি ফাইলে স্বাক্ষর করেছেন ৷ আমরা এই প্রথম বোনাস পেয়েছি ৷ আমাদের যেসব সমস্যাবলী তার থেকে কিছুটা উত্তরণ হয়েছে ৷ এখনো অনেক পথ বাকী ৷ এখন এই পর্যায়ে সাংগঠনিক উদ্যোগ আরো বেশী করে গ্রহন করা কাঙ্ক্ষিত ৷ এইরকম সময়ে সব সংগঠনগুলিকে একীকরণ করে একটিমাত্র সংগঠনে পরিনত করার প্রস্তাব উঠেছে ৷

প্রক্ষিত: ২০১১ সালের পূর্বে এস.এস.কে./এম.এস.কে.র ক্ষেত্রে মুকলেশ রহমানের নেতৃত্বে একটিমাত্র সংগঠন ছিল ৷ কিন্তু ২০১১ সালের পরে ঐ সংগঠন বিভাজিত হতে হতে অনেকগুলি সংগঠনে পর্যবসিত হয়েছে ৷ আমাদের শক্তির এই বিভাজন আমাদের পেশাগত মৌলিক সমস্যাবলী নিরসনে সদর্থক ভূমিকা নিতে পারেনা ৷ মুলত: এই কারনে এবং পরিস্থিতির নিরিখে কর্মসূচি গ্রহণ করার ব্যর্থতাজনিত কারনে শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের কলেবর ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে ৷ কিন্তু অন্যান্য সংগঠনের অস্তিত্ব রয়েছে ৷ এখন এই সংগঠনগুলির একীকরনের মৃদু দাবী উঠেছে ৷ আবার সরকারও চাইছে, সমস্ত সরকারপন্থী সংগঠনগুলিকে এক করে একটিমাত্র সংগঠনে রুপ দিতে ৷

প্রতিবন্ধকতা: এখন সংগঠনগুলির একীকরনের ক্ষেত্রে কিছু মৌলিক প্রশ্নের যাহা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে তার উত্তর অনুসন্ধান করা জরুরী ৷ যেমন-
(১)  Monopoly সংগঠন বা শাসনব্যবস্থার সঙ্গে মজবুত গণতন্ত্রের সম্পর্ক ব্যস্তানুপাতিক ৷ অর্থাৎ monopoly ব্যবস্থা সংগঠন করার ক্ষেত্রে ব্যক্তির অধিকারকে হরণ করে ৷ এই অধিকার যদি ক্ষুন্ন হয় তবে তাহা কতখানি প্রগতিশীল হবে ?
(২)   সাংগঠনিক স্বতন্ত্রতা আন্তসাংগঠনিক দ্বন্দ্বের জন্ম দেয় ৷ এই দ্বন্দ যেমন সাংগঠনিক সজীবতা অর্জনে সহায়ক হয় তেমনি সঠিক দিশা দেখায় ৷ আবার সাংগঠনিক স্বতন্ত্রতা বিসর্জন দিয়ে সংগঠনগুলিকে একটিমাত্র সংগঠনে পরিণত করলে "সাংগঠনিক বদ্ধদশা" organizational stagnancy  সৃষ্টি হয় ৷ এই stagnancy আমাদের লক্ষ্য পূরণে কতখানি সহায়ক হবে ?
(৩)   সমস্ত সংগঠনগুলি একীকরণ করে একটিমাত্র সংগঠনে পরিণত করা হলে সেই সংগঠন সরকারের keep হয়ে পড়বে না তো ? আর যদি  সরকারের keep হয়ে পড়ে তাহলে উক্ত সংগঠন সরকারের উপর সম্পূর্ণরূপে মুখাপেক্ষী হয়ে পড়বে ৷ আর এই যদি হয় তাহলে তাহা কতখানি স্বার্থের অনুসারী হবে?

সম্ভাব্য প্রতিকার :  উপরোক্ত প্রতিবন্ধকতার নিরিখে আমার মনে হয়, প্রায় সমমনস্ক সংগঠনগুলি একত্রিত হয়ে একটি সংগঠনে পরিনত হওয়ায় বাঞ্ছনীয় ৷ সরকারপন্থী সংগঠনগুলি একত্রিত হয়ে একটি সংগঠনে পরিণত হোক ৷ শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ যেহেতু অরাজনৈতিক সংগঠন, তাই ঐ সংগঠন তার স্বাধীন সত্বা বজায় রাখুক ৷ এইভাবে সম্মীলনের পরে দুটি বা তিনটি সংগঠন থেকে যায় তাহলে আশু কর্তব্য হলো আন্তসাংগঠনিক আলাপ আলোচনার বাতাবরণ তৈরী করা ৷ অভিন্ন ইস্যুগুলো নিয়ে অভিন্ন কর্মপন্থার গ্রহণ করার উপর জোর দিতে হবে ৷ এই কর্মপন্থা রূপায়ণের মাধ্যমে আমাদের লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেতে হবে ৷ আর এইভাবে চললে তাহা কাঙ্ক্ষিত সাফল্যে পর্যবসিত হবে ৷

 লিখেছেন    -   গোলাম মোস্তাফা

No comments:

Post a Comment

এখন যদি করেন কেস , অচিরে ই হবেন শেষ

এখন যদি করেন কেস , অচিরে ই  হবেন শেষ    প্রচলিত অনেক কথা আছে ------ "শিকারী বিড়ালের গোঁফ দেখলেই চেনা যায়  বা   মায়ের চেয়ে মাসির দরদ বেশ...